আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন

  আমরা প্রত্যেকদিন বিভিন্নভাবে আলু খেয়ে থাকি । আমরা হয়তো জানি না আলোর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে । তাই নিচে আমরা আলোচনা করব আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে ।


প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে করেন তাহলে নিশ্চয় জানতে পারবেন যে আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে । তাহলে চলুন দেরি না করে শুরু করা যাক আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য -

কনটেন্ট সূচিপত্রঃ আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন

ভূমিকা

মূল্যত আলু হল একটি বহু বর্ষজীবী টিউবেরাস ফসল যা সোলানেশিয়া গোত্রের অন্তর্গত । আসলে এর খাওয়ার উপযোগী টিউবারের কারণে এটি আলু নামকরণ । আলুর ইংরেজি শব্দ পটেটো এসেছে পেনিস পেটে টা থেকে । পেনিস রয়েল একাডেমীর তথ্য অনুযায়ী এটি টাইনো ( মিষ্টি আলু) ও কুয়েছু পেপা (আলু) । আলু বলতে মূলত সাধারণ আলু অপেক্ষা মিষ্টি আলু কে বুঝানো হয় । যদিও এই দুই ধরনের

আরো পড়ুনঃ লাল শাকের উপকারিতা - পুই শাকেরউপকারিতা

 আলুর মাঝে কোন মিল নেই । ষোড়শ শতাব্দীতে ইংরেজি উদ্ভিদবিদ জন গেরারড বাস্টার্ড পটেটো এবং ভার্জিনিয়া পটেটো নামক দুটি টার্ম ব্যবহার করেন এবং মিষ্টি আলুকে সাধারণ আলু হিসেবে নামকরণ করেন ।

আলুর উপকারিতা

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে গোল আলু রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য প্রয়োজন কম সোডিয়ামযুক্ত খাবার খাওয়া এবং তার সাথে প্রয়োজন বেশি পরিমাণে পটাশিয়ামযুক্ত খাবার । আলুতে এই দুইটি জিনিস এই সঠিক পরিমাণে থাকাই রক্তচাপ সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা যায় ।

হার্টের জন্য আলু

আলুতে রয়েছে ফাইবার , পটাশিয়াম , ভিটামিন সি , ভিটামিন বি ৬ যার ফলে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় । কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ হলে  হার্ট সুস্থ থাকে ।

ক্যান্সার থেকে মুক্তি দেয়

ক্যান্সার থেকে মুক্তি দেয় আলু । আলুতে রয়েছে ফোলেট যা  dna  তৈরি ও মেরামত করতে সাহায্য করে । এর ফলে যে সব কোষগুলি ক্যান্সারের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে সেগুলি নষ্ট হয়ে যায় । এছাড়া আলুতে থাকা ফাইবার কুলন ক্যান্সার মুক্ত করতে সাহায্য করে ।

হাড়ের স্বাস্থ্য ঠিক রাখে

আলুতে থাকা আয়রন , ক্যালসিয়াম , ম্যাগনেসিয়াম ও জিংক , এইসব কয়টি উপাদান হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য উপযুক্ত । ফলে আলু শরীরের গঠন মজবুত করতে সাহায্য করে এছাড়া আলুতে রয়েছে ফসফরাস যা  অস্টিওপেরোসিস নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে ।

হজম ক্ষমতা বাড়ায়

মানব দেহে সঠিক পরিমাণে ফাইবার প্রবেশ করলে হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় ও পাচনতন্ত্র সঠিক ভাবে কাজ করা উপযুক্ত হয় । আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ।

কিডনি স্টোন থেকে মুক্তি পেতে

হজম ক্ষমতা ও পরিবর্তন তো ঠিক থাকলে শরীরে পানি পরিমাণ ঠিক থাকে যার ফলে এটি কিডনিতে পাথর প্রতিরোধ করতে সহায়তা করতে পারে ।

আরো পড়ুনঃ আপেলের ঔষধি গুনাগুন/উপকারিতা ও অপকারিতা জেনে নিন

দাঁতের সমস্যা সমাধান

দাঁত ও নারীর সমস্যার ক্ষেত্রে ভিটামিন সি বেশ উপযুক্ত । তাই এক টুকরো আলু দিয়ে রোজ দাঁত পরিষ্কার করলে দাঁতের নানা সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব ।

পেটের সমস্যা সমাধান

যদি আপনার পেটে সমস্যা থাকে যেমন ডায়রিয়া , আমাশয় বা হজমের সমস্যা থাকে । তাহলে আলু সেদ্ধ করে খেতে পারেন তাহলে আপনার পেটের সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে ।

শরীর ফুলে যাওয়া থেকে মুক্তি পেতে

আলুতে সঠিক পরিমাণে ফাইবার ও এন্টি এক্সিডেন্ট হয়েছে যা মানুষের শরীরের ইলেকট্রোলাইসিস নিয়ন্ত্রণের সহায়তা করে । এর ফলে মানবদেহে গা হাত পা শরীরের কোন অংশ ফুলে যাওয়া থেকে সহজে মুক্তি পাওয়া যায় ।

মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে

মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের জন্য কার্বোহাইডেট পটাশিয়াম ও গ্লুকোজ জরুরী । এর সব কটি উপাদান একসাথে আলুতে থাকার কারণে হলে মস্তিষ্ক স্বাস্থ্যকর রাখবে আলুর ভূমিকা আছে ।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

আলো বিশেষ করে মিষ্টি আলু ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ । তাই এই আলো নিয়মিত খেলে মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দিন দিন বৃদ্ধি পায় ।

ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখতে

আপনি যদি আপনার সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চান তাহলে প্রতিদিন আপনার খাদ্য তালিকায় অল্প পরিমাণ আলু যোগ করতে ভুলবেন না  । আলুতে তুলনামূলকভাবে অতিক্রম পরিমাণে চর্বি বা ফ্যাট থাকে যার কারণে পেট ভরে খাওয়া সত্ত্বেও ওজন খুব একটা বাড়ে না  ।

ঘুমের সমস্যা সমাধান

মানব দেহে সঠিক পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম পটাশিয়াম ও ক্যালসিয়াম থাকলে শরীরে ভারসাম্য ও আরাম প্রদান করে থাকে যার ফলে আপনার স্নায়ু ও শান্ত থাকে আপনি নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারেন । তাই ঘুম কম হওয়ার সমস্যা থাকলে আপনি অনায়াসে আলু খেতে পারেন উপকার পাবেন ।

মেজাজ খিটখিটে হওয়া থেকে মুক্তি পেতে

নারীদের মাসিক হওয়ার ঠিক আগের মুহূর্তে গুলিতে মিষ্টি খাওয়ার একটা প্রবণতা তৈরি হয় । আলুতে আছে সঠিক পরিমাণে প্রাকৃতিক মিষ্টি পদার্থ ফাইবার এবং এন্টিঅক্সিডেন্ট তাই আলু খেলে ওই সময় মেজাজ খিটখিটে হওয়া থেকে মুক্তি দেয় । এছাড়া শরীরে তখন কম পরিমাণে অ্যাস্ট্রোজেন থাকার ফলে হরমোনের নানা রকমের সমস্যা দেখা দেয় । এই সময়তে আলু খাওয়ার উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো 

আলুর অপকারিতা

প্রিয় পাঠক উপরে আমরা আলোচনা করেছি যে আলুর উপকারিতা সম্পর্কে আপনি যদি উপরের অংশটুকু পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন । নিচে আমরা আলোচনা করব আলুর অপকারিতা সম্পর্কে আপনি যদি নিচের অংশটুকু মনযোগ সহকারে পড়েন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পারবেন আলুর অপকারিতা সম্পর্কে তাহলে চলুন দেরি না করে শুরু করা যাক আলুর অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য-

আরো পড়ুনঃ পেঁয়াজের উপকারিতা - অপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন

  • বেশি পরিমাণে আলু খাওয়ার ফলে ডায়রিয়া বা আমাশায় হতে পারে ।
  • নষ্ট আলু খাবেন না কারণ এতে আপনার উপকারের যে অপকারিতা বেশি হবে ।
  • গর্ভবতী মহিলাদের জন্য প্রতিদিন আলু ফেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে ।
  • যারা ওজন কমানোর চেষ্টা করছেন বা ডায়াবেটিসে ভুগছেন তাদের আলু খাওয়া যাবে না কারণ নিয়মিত আলু খেলে এই রোগ গুলো আরো বাড়তে পারে । 
  • নিয়মিত বেশি পরিমাণে আলু খেলে রক্তে শর্করা ভারসাম্যহীনতা ক্ষুধারারাস ডায়াবেটিসের মতো জটিলতা দেখা দিতে পারে ।
  • আলুর ক্ষতিকারক দিক থেকে গ্যাস্ট্রিক তাই যাদের গ্যাস্ট্রিক এর সমস্যা আছে তাদের আলু পরিহার করে চলায় ভালো ।

আলুতে যা যা পুষ্টিগুণ আছে

প্রিয় পাঠক উপরে আমরা আলোচনা করেছি আলুর অপকারিতা ও উপকারিতা সম্পর্কে নিচে আমরা আলোচনা করব আলুতে যা যা পুষ্টিগুণ আছে সেই সম্পর্কে আপনি যদি নিচের অংশটুকু পরেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পারবেন যে আলুর পুষ্টিগুণ গুলো ।


শক্তি ৩২১ জুল (৭৭ ক্যালোরি), স্টার্চ ১৫ গ্রাম , তন্ত দুই দশমিক দুই গ্রাম , চর্বি 0.1 গ্রাম , প্রোটিন ২ গ্রাম , পানি ৭৫ গ্রাম , থায়ামিন ভিটামিন বি ১ , শূন্য দশমিক ০৮ মিলিগ্রাম , ভিটামিন বি টু ০.০৩ মিলিগ্রাম , ভিটামিন বি থ্রি ১.১ মিলিগ্রাম , ভিটামিন বি ৮ ০.২৫ মিলিগ্রাম , ভিটামিন সি ২০ মিলিগ্রাম , ক্যালসিয়াম ১২ মিলিগ্রাম , আয়রন ১.৮ মিলিগ্রাম , ম্যাগনেসিয়াম ২৩ মিলিগ্রাম , ফসফরাস ৫৭ মিলিগ্রাম , পটাশিয়াম ৪২১ মিলিগ্রাম , সোডিয়াম ৬ মিলিগ্রাম ।

 আলুর গুণাবলী

অনেকেই ফ্রাই এবং আলুর চিপস খেতে পছন্দ করেন  । কিন্তু ফ্যাট থাকার কারণে এসব খাবারের যে শরীরের ক্ষতি হয় সেদিকে আমরা খেয়াল রাখি না । আলু সেদ্ধ করে বা তরকারিতে রান্না করে কিংবা ভর্তা করে খাওয়া যায় । আলুতে ভিটামিন সি রয়েছে শরীরের কোষের ক্ষতির পুষিয়ে দেয় । আলু পেটের সমস্যা দূর করে ত্বকের কোথাও পুড়ে গেলে কাঁচা আলু  পুড়ে যাওয়া জায়গায় লাগালে আরাম পাওয়া যায় । আলুতে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স , অ্যামাইনো এসিড , ওমেগা থ্রি সহ নানা ধরনের পার্টি এসিড রয়েছে যা মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়াতে সহায়তা করে ।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয় জানতে পেরেছেন যে আলুর উপকারিতা অপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে । আরো জানতে পেরেছেন আলোর গুণাবলী । তথ্যবহুল এই আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করবেন ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url