ছাগল পালনের সঠিক পদ্ধতি জেনে নিন

ছাগল পালনের সঠিক ও সহজ পদ্ধতি সম্পর্কে যদি আপনি জানতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য  । আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করব কিভাবে ছাগল পালন করলে বেশি লাভবান হতে পারবেন কম খরচে কিভাবে ছাগল পালন করতে পারবেন এবং কোন জাতির ছাগল নির্বাচন করতে হবে তা নিয়ে ।


প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুর আর্টিকেলটি পড়েন তাহলে আর জানতে পারবেন যে ছাগল পালনের জন্য কোন জাতের কেমন পাঁঠা নির্বাচন করতে হবে । তাহলে চলুন দেরি না করে শুরু করা যাক আজকের আর্টিকেলে আলোচনা গুলো ।
পেজ সূচিপত্রঃ ছাগল পালনের সঠিক পদ্ধতি জেনে নিন
  • ভূমিকা
  •  প্রযুক্তির বৈশিষ্ট্য/ সংক্ষিপ্ত বিবরণ
  • ছাগি নির্বাচন
  • পাঠা নির্বাচন
  • খাদ্য ব্যবস্থাপনা
  • শেষ কথা

ভূমিকা

দেশি ব্লাক বেঙ্গল ছাগল খামার স্থাপনে উন্নত গোলাগর সম্পন্ন ছাগল নির্বাচন কৌশল । লাভজনক ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের খামার স্থাপনে উৎপাদন বৈশিষ্ট্য গুণাগুণ সম্পন্ন ছাগীও পাঁঠা সংগ্রহ একটি মূল দায়িত্ব হিসেবে বিবেচিত । মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন বয়সী ছাগী ও পাঠা নির্বাচন সফলভাবে পালনের জন্য প্রযুক্তিগত তথ্যাদি সরবরাহ অত্যাবশ্য ।

প্রযুক্তির বৈশিষ্ট্য /সংক্ষিপ্ত বিবরণ

বাংলাদেশে বর্তমান বাণিজ্যিক ছাগল প্রজনন খামার না থাকায় মাঠ পর্যায়ে হতে ছাগল সংগ্রহ করতে হবে । মাঠ পর্যায়ে ব্র্যাক বেঙ্গল ছাগল বাচ্চা ও দুধ উৎপাদনের ক্ষমতা বিদ্যমান । উক্ত বংশ অথবা পরিবেশগত কারণ বা স্বতন্ত্র উৎপাদন দক্ষতার জন্য হতে পারে । সে প্রেক্ষাপটে ব্লাক বেঙ্গল ছাগলের খামার প্রতিষ্ঠার জন্য বংশ বিবরণের ভিত্তিতে বাছাই ও নিজস্ব উৎপাদন পুনরুত দান বৈশিষ্ট্য গুলি ভিত্তিতে বাঁচায় বিবেচনা রেখে ছাগল নির্বাচন করা যেতে পারে । বংশ বিতরণের ভিত্তিতে বাছাই মাঠ

 পর্যায়ে বংশ বিবরণ পাওয়া দুরুহ । কারণ খামারের ছাগলের বংশ বিবরণ লিখিত আকারে সংরক্ষণ করে না । তবে তাদের সাথে আলোচনা করে একটি ছাগী বা পাঠার বংশের উৎপাদন দক্ষতা সম্বন্ধে ধারণা নেয়া যেতে পারে । সাগির মা দাদি নানীর প্রতিবারের বাচ্চার সংখ্যা দৈনিক দুধ উৎপাদন বায়ু প্রাপ্তির বয়স বাচ্চা জন্মের ওজনের ইত্যাদি সংগ্রহ করা সম্ভব । পাঠা নির্বাচনের ক্ষেত্রে পাঁঠার মা দাদী নানীর তত্ত্বাবির উপর নির্ভর করা যেতে পারে ।

ছগী  নির্বাচন

লাভজনক ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল খামার প্রতিষ্ঠার জন্য সারণি ১ এ উল্লেখিত জাতীয় ছাগল নির্বাচনের ক্ষেত্রে দৈহিক যে সমস্ত গুণাবলী বিবেচনার প্রয়োজন তা নিচে দেওয়া হবে । বিভিন্ন বয়সের দৈহিক বৈশিষ্ট্যের তারতম হয় । সে কারণে ছগীর ১২ মাস ১২ থেকে ২৪ মাস এবং ২৪ মাসের ঊর্ধে বয়সের দৈহিক বৈশিষ্ট্য ভিন্নভাবে তুলে ধরা হবে  ।
  • মাথা চওড়া ও ছোট হবে । দৈহিক গঠন শরীর কমিক এবং অপ্রয়োজনীয় পেশি মুক্ত হবে ।
  • বুক ও পেট  বুকের ও পেটের ব্যার গভীর হবে ।
  • পাঁজরের হাড় চওড়া এবং দুইটি হাড়ের মাঝখানে কমপক্ষে এক আঙ্গুল ফাঁকা জায়গায় থাকবে ।
  • ওলানের দৈর্ঘ্য এবং প্রস্থ সমাজ যোগানো থাকবে । বাট গুলো হবে আঙ্গুলের মত একই আকারের এবং সমান তরল ভাবে সাজানো দুধের শিরা উল্লেখযোগ্য ভাবে দেখা যাবে ।
  • আকর্ষণীয় চেহারা ছাগী সুলভ আকৃতি সামঞ্জস্য সম্পন্ন ও নিখুত অঙ্গ পতঙ্গ । ঁত

পাঠা নির্বাচন

লাভজনক ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল খামার প্রতিষ্ঠার জন্য উল্লেখিত জাতীয় পাঠা নির্বাচনের ক্ষেত্রে দৈহিক যে সমস্ত গুণাবলী বিবেচনা প্রয়োজন তা নিম্নরূপ । বিভিন্ন বয়সে দৈহিক বৈশিষ্ট্যের তারতম্য হয় । গুনাগুন সম্বলিত একটি পাঠার নিচের বৈশিষ্ট্যাবলী থাকা প্রয়োজন -
  • ঘাড়খাটো ও মোটা থাকবে । বুক গভীর ও প্রশস্ত হবে ।
  • পিঠ প্রশস্ত হবে
  • নয়ন প্রশস্ত ও পুরো এবং রাম এর উপরিভাগ সমান তরল লম্বা থাকবে ।
  • পা সোজা খাটো এবং মোটা হবে । বিশেষ করে পিছনের সুঠাম ও শক্তিশালী হবে । একটি হতে অন্যটি বেশ থাকবে ।
  • অন্ডকোষ শরীরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ জুলে থাকবে ।
  • বয়স অধিক বয়স্ক দুই বছরের বেশি পাঠান নির্বাচন করা যাবে না ।

ব্যবহারের সম্ভাবনা

সব ঋতুতে এবং সমগ্র বাংলাদেশের ব্যবহার উপযোগী । প্রযুক্তি ব্যবহারে সতর্কতা বিশেষ পরামর্শ শুধুমাত্র উল্লেখিত বৈশিষ্ট্য বলির উপর ভিত্তি করে ছাগী এবং পাঠান নির্বাচন করলেও একটি খামার লাভবান হবে না । বরং অনবরত ছাগল নির্বাচন সহ খাদ্য ব্যবস্থাপনা এবং সর্বোপরিষ্ঠ খামার ব্যবস্থা করা সম্ভব হলে লাভজনক খামার প্রচেষ্টা করা সম্ভব । তাই নিচে আমরা আলোচনা করব ছাগলের খাদ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে নিয়ে । 

ছাগলের খাদ্য ব্যবস্থাপনা

প্রতিদিন এ ১০০ থেকে ৫০০ গ্রাম নির্ভর করে সাজ ও জাতের উপর । ঘাসের সাথে ৫০% এবং বা পাতা ৫০% পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘাস ও লিওন এর প্রচুর ক্যালসিয়াম আছে যা ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস অনুপাত ঠিক রাখবে । বেশি দানাদার দিলে অবশ্যই খামারের এমোনিয়াম ক্লোরাইড ব্যবহার করতে হবে । পরিমাণ হবে ১ পার্সেন্ট মোটা দানা দার খাবারের । ফলে পাঠা ও শাগির প্রস্রাবের রাস্তায় পাথর হবেন ।

  • ভুট্টা ভাংগা ৪৭ পারসেন্ট
  • সয়াবিন খল ৩০%
  • চিটাগর ৭%
  • লবণ এক পারসেন্ট
  • ঘমের ভুসি ১০%
  • চুনাপাথর ৩%
  • চিলেটেড মিনারেল মিক্স ২%

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমাদের এই পরে আর্টিকেলটি পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন যে ছাগলের খাদ্য ব্যবস্থাপনা এবং কোন জাতির ছাগল নির্বাচন করতে হবে ও কিভাবে ছাগল পালন করলে অধিক লাভজনক হওয়া যায় ইত্যাদি বিষয়গুলি । তথ্যবহুল এই আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট করবেন ।


Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url