ডায়াবেটিস হলে করণীয় কি - ডায়াবেটিস কেন হয় জেনে নিন

 ডায়াবেটিস বাড়ছে তবে  প্রতিরোধ যোগ্য রোগও বটে । আমেরিকাতে ২৫ শতাংশ লোকের রয়েছে প্রি ডায়াবেটিস । এ দেশেও বেশ দেখা যাচ্ছে এ অবস্থা । রক্তের স্লোগার স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়ে তবে ডায়াবেটিস হবার মতো পর্যায়ে পৌঁছায় না । এরকম থাকলে দশ বছরের মধ্যে ডায়াবেটিস হয়ে যায় । প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো আর্টিকেলটি করেন তাহলে ডায়াবেটিস হলে করনীয় কি এবং ডায়াবেটিস কেন হয় তা জানতে পারবেন ।

তবে মাত্র 4 শতাংশ লোক এর সম্বন্ধে অবহিত । কষ্টের কথা হলো যারাও অবহিত এদের মধ্যে অর্ধেকের কম লোক শরীরের ওজন বেশি থাকলে কমিয়ে কম খেয়ে বেশি ব্যায়াম করে ঝুঁকি কমাবার সত্যিকারের চেষ্টা করে । এমন কিছু অভ্যাস আছে যা চর্চা করলে ডায়াবেটিস ঠেকানো যায় । জীবন বড় ঔষধ ও রক্ত সুগার তদারকি হাত থেকে বাঁচা যায় । তাই কৌশল শিখলে ক্ষতি কি? খাদ্য ভিটামিন খান এমনকি মনের দৃষ্টিভঙ্গি একে প্রতিহত করার জন্য কম বড় হাতিয়ার নয়।

পেজ সুচি ঃ ডায়াবেটিস হলে করনীয় কি -ডায়াবেটিস কেন হয় জেনে নিন

  • ডায়াবেটিস হলে করনীয় কি
  • ডায়াবেটিস কেন হয়
  • শেষ কথা

ডায়াবেটিস হলে করনীয় কি

দেখে নিন ওজন কত শরীরেরঃ

 আমরা জানি যে শরীর থেকে মাত্র ১০ পাউন্ড বাড়তে ওজন জড়ালেও অনেক কমে ঝুঁকি । এমন কি খুব সুস্থ লোক শরীরে মাত্র পাঁচ শতাংশ ওজন গ্রাস করলে ব্যায়াম না করলেও ৫ শতাংশ ঝুঁকি কমাতে পারেন ডায়াবেটিসে । কম ক্যালরি খেয়ে ঘটানো যাই এমন মেজিক ।

আরো পড়ুন ঃ পেটে কৃমি হলে করণীয় -কৃমি কিভাবে ছড়ায় জেনে নিন

সঠিক খোদা বর্ধক চাইঃ

 সবজি সালাত ভালো শর্করা খাওয়ার আগে পেট ভরে সবুজ শাকসবজি খেলে রক্তের সুগার থাকবে নিয়ন্ত্রণে  ।আরিজোনা টেস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় টাইপ ২ ডায়াবেটিস রোগী বা ইনসুলিন  রেজিস্ট্যান্স সমস্যা যাদের তাদের দেখা গেছে প্রচুর স্বেতসার আহারের পূর্বে দুই টেবিল চামচ ভিনেগার খেয়ে নিলে এদের রক্তের সুগার কমে আসে । রক্তের সুগারের উপর বিনা ভিনাগারের প্রভাবটি ডায়াবেটিসের ঔষধ । আহারে বাত , মাছ খাওয়ার আগে এক প্লেট সবজি ও সালাত ৩ টেবিল চামচ ভিনেগার , 2 টেবিল চামচ তিসি তেল , এক কোয়া রসুন , এক চামচের চার ভাগের এক ভাগ মধু , 2 টেবিল চামচ দই , নুন ও গোলমরিচ ও লেটুস পাতা ।

যত পারুন হাঁটুনঃ

ফিনিশ একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সব লোক বেশি ব্যায়াম করছে সপ্তাহে চার ঘন্টা বা দিনে ৩৫ মিনিট তাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমছে ৮০ শতাংশ  ওজন না কমানো সত্ত্বেও কেবল হেঁটে । কেন কেন হাটা এত স্বাস্থ্যকর গবেষণায় দেখা গেছে ব্যায়াম করলে দেহ কোষের ইনসুলিন রিসেপ্টরের সংখ্যা বাড়ে । এতে শরীর হরমোন ইনসুলিন কে আরো কার্যকরভাবে ব্যবহৃত করতে পারছে । ইনসুলিন রক্তের সুগারকে কোষের বেতর ঢুকতে সাহায্য করে , শরীর গ্লুকোজ দমন করে পাই শক্তি ও পুষ্টি । তাই যানবাহনে কম চলুন বেশি হাঁটুন ।

সঠিক শস্যদানা গ্রহণ করুনঃ

সঠিক শস্যদানা বেছে নিলে বেঁচে থাকা সহজ হয় । নিয়ন্ত্রণে থাকে রক্তের সুগার । ওটা দানা শস্য বেশি খেলে স্তন ক্যান্সারের হার কমে , কমে টাইপ ২ ডায়াবেটিস উচ্চ রক্তচাপ ও স্ট্রোক । গম আটা ঢেঁকি ছাতা চাল চিনি যেসব খাবারের লুকানো থাকে তা পরিহার যেমন ব্রাউন সুগার , কর্ন সিরাপ , ডেক্সট্রোজ , চিনি ও গুড় ।

কফি পান ভালোঃ

হার্ভার্ড স্কুল অফ পাবলিক হেলথ গবেষণায় দেখা গেছে ৩ থেকে ৪ কপি কফি দিনে কমে ২৯ থেকে ৫৪ শতাংশ ডায়াবেটিসের জুকি । ক্যাফিনে  কাজ হয় চা ও চকলেটে । ক্যাফিন উজ্জীবিত করে বিপাক । ক্যাফিনের বড় উৎস কফিতে আছে আরো পটাশিয়াম ম্যাগনেসিয়াম ও এন্টিঅক্সিডেন্ট গ্লুকোজ শোষণের সহায়ক ।

ফাস্টফুড আর নয়ঃ

মিনাছোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা ১৮ থেকে ৩০ বছরের ৩০০০ লোকের উপর ১৫ বছর গবেষণা করে পেলেন কদাচিত ফাস্টফুট খেলেন তাদের নয় যারা নিয়মিত ফাস্টফুট খেয়েছেন তাদের ডায়াবেটিস রোগী হয় । অনেক ফাস্ট ফুডে আছে অস্বাস্থ্যকর ট্রান্সপোর্ট ও শর্করার ঝুঁকি আরও বেশি । তাই আপনারা সকলেই ফাস্টফুড এড়িয়ে চলুন ।

নিয়মিত শাকসবজি ও মসলাযুক্ত খাবার খানঃ

নিয়মিত খান রঙিন শাকসবজি ও মাছ । দারুচিনি বেশ প্রভাব ফেলে রক্তের সুগারের উপর । জার্মান গবেষকরা দেখেছেন 1 গ্রাম দারুচিনি পাউডারের একটি ক্যাপসুল খেলে রক্তের সুগার কমে দশ শতাংশ । দারুচিনিতে এমন উপকরণ আছে যা ইনসুলিন রিসেপটারকে উদ্দীপন করে এমন এঞ্জাম দের সক্রিয় করে । মিষ্টি এই মসলা রক্তের কোলেস্টেরল ও চর্বীয় কমিয়ে থাকে ।

রাতে যেন হয় সুনীদ্রাঃ

ইএল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে যাদের ঘুমরাতে 6 ঘন্টার কম হয় নিয়মিত এদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হয় দ্বিগুণ যারা ৮ ঘন্টা ঘুমান তাদের তুলনায় । খুব কম ঘুমালে বা খুব বেশি ঘুমালে স্নায়ুতন্ত্র থাকে বড় সজাগ । এতে রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রক হরমোন ব্যাহত হয় । কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় একটি গবেষণা দেখা গেছে যাদের ঘুম ৫ ঘন্টার কম হয় এদের উচ্চ রক্তচাপের ঝুকি হয় দ্বিগুণ । সুনিদ্রা জন্য বিকাল থেকে চা কফি চকলেট গ্রহণ করা উচিত নয় । লেট নাইট টিভি দেখবেন না মোবাইল অফ রেখে ঘুমাবেন ।

ডায়াবেটিস কেন হয়

কোন ব্যক্তির রক্তে যদি শর্করা পরিমাণ বেড়ে যায় , গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে যায় , তখন আমরা তাকে ডায়াবেটিস আক্রান্ত বলি । নির্দিষ্ট যে মাত্রা থাকে তার তুলনায় বেশি যদি মাত্রা হয়ে যায় সেটি ডায়বেটিস । অনেক কারণে ডায়াবেটিস হতে পারে । জিনগত কারণে হয় এটা প্রথম কারণ । ওজনের সঙ্গে ডায়াবেটিসের সম্পর্ক রয়েছে । আর আমরা গাইনোকোলজিস্টরা যেটা অনুভব করি সেটা হলো

 গর্ভাবস্থায় অনেকে ডায়াবেটিস নিয়ে আসে । যে নারী গর্ভবতী হলেন তার আগে হয়তো ডায়াবেটিস ছিল না তবে গর্ব অবস্থায় তার ডায়াবেটিস ধরা পড়েছে । এই ডায়াবেটিস কে আমরা বলি জেসটেশনাল ডায়াবেটিস বা গর্ভকালীন ডায়বেটিস ।

আরো পড়ুনঃ চুলের যত্ন - সৌন্দর্য পরামর্শসম্পর্কে জেনে নিন

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক উপরে আমরা আলোচনা করেছি যে ডায়াবেটিস হলে করণীয় কি এবং ডায়াবেটিস কেন হয় তা জেনে নিন । আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো আর্টিকেলটি পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন । এবং আপনি যদি জেনে উপকৃত হয়ে থাকেন তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটি ভিজিট করবেন ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url