পিঠে ব্যথারকারণ ও প্রতিরোধ সম্পর্কে জেনে নিন

 পিঠে ব্যথার সমস্যা যে কারো জন্য খুবই যন্ত্রণাদায়ক অবস্থা । পিঠে ব্যাথা সমন্ধে জানতে হলে প্রথমে মেরুদন্ড সম্পর্কে জানা প্রয়োজন । মেরুদন্ড একটি মাত্র হার নয় তেত্রিশটি হাড়ের সমন্বয়ে এটা তৈরি । প্রতিটি হার  কার্টিলেজের কুশন দিয়ে পিথক রয়েছে । এই কুষনকে ডিক্স বলে । প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমাদের আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে পেট ব্যথার কারণ ও প্রতিরোধ সম্পর্কে জানতে পারবেন ।

এর কারণে মেরুদন্ড সামনে পেছনে বাঁকানো সম্ভব । মেরুদন্ড নিখুঁতভাবে সোজা নয় । পাস থেকে দেখলে এর স্বাভাবিক আকৃতি হল ইংরেজি অক্ষর  ঝ য়ের মত । পিঠে ব্যথার প্রতিরোধে প্রধান শর্ত হলো যেকোনো কাজ করার সময় মেরুদন্ডের এই আকৃতি অক্ষুন্ন রাখা । পেটের এবং পিঠের মাংসপেশিগুলো মেরুদন্ডকে সাপোর্ট দেয় এবং নাড়াচাড়ায় সহায়তা করে ।

পেজ সূচিপত্রঃ পিঠে ব্যথারকারণ ও প্রতিরোধ সম্পর্কে জেনে নিন

  • পিঠে ব্যথার কারণ
  • পিঠের ব্যথা কিভাবে প্রতিরোধ করবেন
  • শেষ কথা

পিঠে ব্যথার কারণ

পিঠে ব্যথার কারণ গুলো মেরুদন্ড এবং তার সহায়তারি মাংসপেশিগুলো থেকে উৎপন্ন হতে পারে অথবা শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ গুলো যাদের স্নায়ু সরবরাহের কিছু শাখা পিঠে বিস্তৃত সেখান থেকেও পেটে ব্যথা হতে পারে । প্রিয় পাঠক আপনি যদি পেটে ব্যথার কারণ সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে নিচের অংশটুকু মনোযোগ সহকারে পড়ুন -

  • শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ গুলো কিছু সমস্যা দেখা দেয়ার কারণে পিঠের নিচের অংশে ব্যাথা হতে পারে ।
  • মেরুদন্ডের হাড়ের দুর্বল স্থাপন যার কারণে মেরুদন্ডের ঝ আকৃতি ঠিক থাকে না ।
  • দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকলে দাঁড়িয়ে থাকলে কিংবা একই অবস্থানে থাকলে । এক্ষেত্রে দীর্ঘক্ষণ থাকার কারণে মাংসপেশিতে টান পড়ে মাংসপেশি সংকুচিত হয় ।
  • হঠাৎ করে শরীর মারাত্মক যাকে খেলে কিংবা শরীর বাঁকা হলে । এতে মাংসপেশিতে টান পড়ে এবং পেশী ছিড়ে যেতে পারে । কোন বাড়ি জিনিস উঠানোর সময় এ অবস্থা হতে পারে ।
  • মেয়েদের মাসিকের সময় জরায়ু সংকোচনের কারণে পিঠে ব্যাথা হতে পারে ।
প্রিয় পাঠক আপনি যদি উপরের অংশটুকু করে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে পিঠে ব্যথার কারণ গুলো নিচে আমরা আলোচনা করব পিঠের ব্যথা কিভাবে প্রতিরোধ করবেন ।

পিঠে ব্যাথা হলে কিভাবে প্রতিরোধ করবেন

প্রিয় পাঠক আপনার যদি পেটে ব্যাথা হয়ে থাকে তাহলে নিজের অংশটুকু আপনার অনেক কাজে আসবে । কারণ নিজে আমরা আলোচনা করব পেটে ব্যথা হলে কিভাবে তা প্রতিরোধ করতে পারবেন । তাহলে চলুন দেরি না করে শুরু করা যাক পেটে ব্যথা হলে কিভাবে প্রতিরোধ করবেন ।
  • পিঠে ব্যাথা প্রতিরোধ করতে  হলে সর্বদা মেরুদন্ডের আকৃতি স্বাভাবিক রাখতে হবে ।
  • দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা যাবে না যদি দীর্ঘক্ষণ দাঁড়ানোর প্রয়োজন দেখা দেয় তাহলে একটি পা প্লাটফর্ম এর উপরে কিংবা টুলের উপর রেখে দাঁড়াতে হবে ।
  • চেয়ারে বসে কাজ করার সময় কিংবা চেয়ারে বসে থাকার সময় যদি চ্যাটিং আপনার পিঠকে ঠিকমতো সাপোর্ট দিতে না পারে তাহলে চেয়ার ও আপনার পিঠের মধ্যকার ফাঁকা জায়গাটি পূরণ করার জন্য কুশন ব্যবহার করুন ।
  • ঘুমানোর সময় কিছু সতর্কতা অবলম্বন করুন যেমন শক্ত তোষক বা জাজিমের উপর ঘুমান । মুখ নিচের দিকে রেখে ঘুমাবেন না উচিত হয়ে ঘুমাবেন যদি পাশে ফিরে ঘুমাতে চান , তাহলে সেই পাশে একটা হাঁটুর সামান্য ভাকা করে ঘুমাবেন ।
  • পিঠে ব্যথা প্রতিরোধে পেট ও পেটের মাংসপেশিকে সফল করার উপায় নিয়মিত কিছু ব্যায়াম করলে পেটুপিটের মাংস পেশি সফল হয় । এই ব্যায়ামগুলোর প্রতিটি দশবার করতে হবে মাংসপেশির সফলতা বাড়ালে ব্যায়ামের পরিমাণ আরো বাড়ানো যাবে । যদি কোন ব্যায়ামের কারণে ব্যাথা হয় তাহলে এই ব্যায়াম বন্ধ করে দিতে হবে ।
  • যতদূর পারা যায় মাথা ও কাধ উপরে দিকে তুলতে হবে মনে মনে পাঁচ বার পর্যন্ত গুনে তারপর শিথিল করতে হবে ।
  • উপর হয়ে শুতে হবে ডানপাটি সোজা রেখে যতদূর সম্ভব উপরে তুলতে হবে । মনে রাখতে হবে এ সময় হাটু কিছুতে বাজ করা যাবে না । মনে মনে ৫ পর্যন্ত গুনে তারপর ধীরে ধীরে পা নামাতে হবে ।এরপর পার্টি একই রকম করতে হবে প্রতি পাইয়ের জন্য ৫ বার এটা করতে হবে । আরো একবার পিঠে ব্যথা হলে ব্যথা সেরে যাওয়ার পর আবার জাতীয় এ ধরনের ব্যাথা না হতে পারে সেই লোককে ব্যথা প্রতিরোধ করার জন্য এসব ব্যায়াম করা যেতে পারে ।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমাদের আর্টিকেল কি পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন যে পিঠে ব্যথার কারণ ও প্রতিরোধ সম্পর্কে । তথ্য বলে আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ডি ভিজিট করবেন । ধন্যবাদ।


Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url